টাকা ইনকাম করার সহজ উপায়

অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়


অনলাইনে ইনকাম ২০২১: আপনি কি একজন শিক্ষার্থী, গৃহিণী অথবা চাকরিজীবী? এর মধ্যে যদি যেকোনো একটি আপনি হয়ে থাকেন তাহলে এই আর্টিকেলটি আপনার জন্যই। যদি আপনি আজকের এই টপিকটি অনুসরণ করেন তাহলে আপনি পড়াশোনা, গৃহস্থলীর কাজকর্ম অথবা চাকরির পাশাপাশি পার্ট টাইম হিসেবে অনলাইন থেকে কিছু বাড়তি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আর বর্তমানে অনলাইনে আয় করার জন্য রয়েছে হাজারো মাধ্যম। হাজারো মাধ্যমের মধ্য থেকে আজকে আমি আপনাদের সাথে অনলাইন হতে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায়গুলো শেয়ার করব। আপনাদের মধ্যে হয়তো অনেকেই ছাত্র-ছাত্রী অর্থাৎ পড়াশোনা অবস্থায় রয়েছেন। আমি নিজেও একজন ছাত্র। আমরা যখন স্কুল-কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করি তখনই আমাদের মাথায় ইনকামের চিন্তাটি আসে। আবার অনেকের ক্ষেত্রে  আরো অনেক আগে ওই চিন্তা চলে আসে।

আমাদের মধ্যে অনেকের পরিবার এতটা উচ্চবিত্ত নয়। আবার আমরা যখন ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করি এবং নিজে যদি কোন কিছু না করে তখন আমাদের বাবা-মার কাছে টাকা চাইতো লজ্জায় পড়তে হয়। লজ্জা হয় এটা ভেবে যে আমি একজন ইউনিভার্সিটির ছাত্র হয়েও বাড়ি থেকে বাবা-মার কাছ থেকে টাকা নিয়ে পড়াশোনা করি। অন্যদিকে অনেক বন্ধুবান্ধব নিজের টাকায় পড়াশোনার খরচ চালিয়ে নেয়।


শিক্ষার্থীদের কেন টাকার প্রয়োজন?

অনেক ছাত্রছাত্রীরা আবার টিউশনি করে মাসে ভালো পরিমাণে কি টাকা ইনকাম করে। কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় যে, টিউশনি করতে গেলে অনেক সময় নানান ধরনের বাধার সম্মুখীন হতে হয়। আবার টিউশনি করার ক্ষেত্রে দেখা যায় যে প্রায় সব সময় সব ধরনের টিউশনি তাকে না অথবা সারা বছর পাওয়া যায় না। তাই নিজে থেকে আরও স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য আমরা বিকল্প পদ্ধতি অনুসরণ করতে থাকি। তবে বেশিরভাগ শিক্ষার্থীর ইচ্ছা হল তারা ঘরে বসে কিছু একটা করবে।

অনেক ছাত্রছাত্রীরা আবার টিউশনি করে মাসে ভালো পরিমাণে কি টাকা ইনকাম করে। কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় যে, টিউশনি করতে গেলে অনেক সময় নানান ধরনের বাধার সম্মুখীন হতে হয়। আমার টিউশনি করার ক্ষেত্রে দেখা যায় যে প্রায় সব সময় সব ধরনের টিউশনি তাকে না অথবা সারা বছর পাওয়া যায় না। তাই নিজে থেকে আরও স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য আমরা বিকল্প পদ্ধতি অনুসরণ করতে থাকি। তবে বেশিরভাগ শিক্ষার্থীর ইচ্ছা হল তারা ঘরে বসে কিছু একটা করবে।

অন্যদিকে রয়েছে ব্যবসায়ী, গৃহিণী অথবা চাকরিজীবী মানুষগন। এ ধরনের অনেক মানুষের মধ্যে নিজেদের আর্থিক স্বচ্ছলতা আরেকটু বাড়িয়ে নেওয়ার জন্য এবং অবসর সময়কে কাজে লাগানোর জন্য বিকল্প পদ্ধতি খুঁজে থাকেন।আবার অনেক চাকরিজীবী রয়েছেন যারা খুব অল্প পরিমাণে বেতন পেয়ে থাকেন যা থেকে সংসার চালাতে অনেকটা অসুবিধা হয়ে পড়ে। তাই নিজের অবসর সময়কে কাজে লাগিয়ে আরেকটু আর্থিক স্বচ্ছলতা বাড়াতে অনলাইনে আয়ের সহজ উপায়টি অনায়াসেই বেছে নিতে পারেন। 

আমার আজকের এই আর্টিকেলটিতে শুধুমাত্র তাদের জন্য যারা শিক্ষার্থী, গৃহিণী, চাকুরীজীবী অথবা ব্যবসায়ী অবস্থায় রয়েছেন।যারা লেখাপড়া বা কাজের পাশাপাশি আর্থিক সচ্ছলতার জন্য অনলাইনে কাজ করে কিছু টাকা হলেও ইনকাম করতে চান।

আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যারা ভাবেন যে অনলাইনে কি সত্যি টাকা ইনকাম করা যায়? আদৌ কি অনলাইনে টাকা ইনকাম করা সম্ভব? যারা এই ধরনের চিন্তা ভাবনার মধ্যে রয়েছেন আমি তাদেরকে বলছি যে, আপনারা এখনও বর্তমান সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারছেন না।

আপনারা এই ডিজিটাল যুগেও অনেক পিছিয়ে রয়েছেন।কেননা বর্তমান এই ডিজিটাল যুগে যে বাংলাদেশেই শুধুমাত্র ঘরে বসে অনলাইনে আয় করা যায় এ বিষয়টি কারো অজানা নয়।বর্তমানে অনেক বাংলাদেশি ঘরে বসে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা আয় করছেন।

আপনাদের মনের মধ্যে যে প্রশ্নগুলো থাকে যে,আমি একজন ছাত্র আমি কি আয় করতে পারব? আমি একজন গৃহিনী, কাজের পাশাপাশি আমি কি করে টাকা আয় করতে পারি? আমার অনেক রয়েছেন চাকরিজীবী অথবা ব্যবসায়ী যারা বাড়তি টাকা আয় করতে চান।

তারা কিভাবে করবেন? এ সম্পর্কে আপনারা আগেই জেনে গেছেন। কারণ উপরে এই সম্পর্কে আমি বিস্তারিত বলেছি। আপনি একজন শিক্ষার্থী, চাকুরীজীবী, গৃহিণী অথবা ব্যবসায়ী যাই হোক না কেন এগুলো করার পাশাপাশি কিছু সময় দিতে পারবেন আপনি দৈনিক অনলাইন থেকে আয় করতে পারবেন।

অনলাইনে ইনকাম ২০২১

যত দিন যাচ্ছে অনলাইনে আয়ের ক্ষেত্রে প্রতিযোগিতার মাত্রাও তত বেড়ে যাচ্ছে। দিনদিন মানুষ এই সেক্টর এর মধ্যে বেশি পরিমাণে প্রবেশ করছে।কারণ যেকোনো একটি বিষয়ের উপরে দক্ষতা থাকলে সেই দক্ষতা ব্যবহার করে খুব সহজেই অনলাইন ব্যবহার করে টাকা আয় করা যায়। 

অনলাইনে অনেক কঠিন ধরনের কারণ রয়েছে যে কাজগুলো সবার পক্ষে করা সম্ভব নয়। অনেক ধরনের কাজ রয়েছে যেকোনো সময় মাথার মধ্যে ধারণ করতে পারবে না। তাই আমরা সকলেই চাই সহজ কাজ করে টাকা আয় করতে। কোন ধরনের কাজ আমরা চাই যে কাজে কষ্ট কমএবং সফলতা বেশি।

তাই যে পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই এবং খুব দ্রুততম সময়ে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন শুধু সেই বিষয়গুলো নিয়ে আজকে আলোচনা করা হবে। কেননা বর্তমানে অনলাইন জগতে প্রচুর বিষয়ের উপরে কাজ।এই সকল কাজ থেকে আপনাকে সঠিক কাজটি নির্বাচন করতে হবে।

আপনারা হয়তো অনলাইনে আয় করার জন্য অনেক সাইট ঘোরাঘুরি করেছেন কিন্তু এক টাকাও ইনকাম করতে পারেননি।তাদের মনে হয়তো নানা ধরনের প্রশ্ন জাগছে।এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ুন আশা করি আপনার মনের সকল প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন।তাহলে  চলুন আর বেশি কথা না বাড়িয়ে যে কাজটি করলে সহজে টাকা আয় করা সম্ভব সে কাজগুলো সম্পর্কে জেনে নেই।


অনলাইনে আয়ের সবচেয়ে সহজ উপায়

কিভাবে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করা যায় সে সম্পর্কে মোটামুটি বর্ণনা সহ নিচে তুলে ধরা হয়েছে। নিচের বিষয়গুলো থেকে আপনি যদি আপনার পছন্দমত এক বা একাধিক বিষয় বেছে নিয়ে কাজ করেন তাহলে সেটি থেকেই আপনি আয় করতে পারবেন। আপনাদের জন্য আমি চেষ্টা করেছি অনলাইনে ইনকাম এর মধ্যে সবচেয়ে সহজ বিষয়গুলো তুলে ধরতে। 

তবে নিচের যে কয়টি তুলে ধরেছি সবগুলোতে কাজ করতে হলে আপনাকে ধৈর্য সহকারে কাজ  করে যেতে হবে এবং কখনো হাল ছাড়া যাবেনা। তাহলে দেখবেন এক পর্যায় আপনার সফলতা নিশ্চিত। কারণ অনলাইনে টাকা আয় করতে হলে প্রথম অবস্থায় আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য ধরতে হবে এবং 1/2  দিন কাজ করে কখনো হাল ছাড়া যাবেনা। 

কথায় আছে সবুরে মেওয়া ফলে। ভালো কিছু পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য ধারণকরাসহ চেষ্টা এবং শ্রম দিতে হবে। এই সকল বিষয়গুলো মেনে নিতে পারলে অনলাইন জগতে আপনাকে স্বাগতম। তাহলে চলুন বিষয়গুলি সম্পর্কে জেনে নেই। 

ব্লগিং করে আয় 

ব্লগিং বলতে মূলত আমরা লেখালেখি করাকেই বুঝে থাকি।অর্থাৎ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে লেখালেখি করে আয় করাটাই হচ্ছে ব্লগিং। আবার অনেকে এটিকে টাইপ করে অনলাইনে আয় করার মাধ্যমেও বলে থাকেন। ব্লগিং বর্তমানে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

দিন দিন ব্লগিং এর প্রতি মানুষের আকর্ষণ বেড়েই চলেছে। কারণ এখানে কম কষ্টের মধ্যমে পরিমাণ টাকা অনলাইন থেকে ইনকাম করা যায়। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর অনেক মানুষ তাদের অবসর সময়ে এই কাজটি করে থাকেন।ছাত্র-ছাত্রী থেকে শুরু করে যে কেউ এই কাজটি করতে পারবে। তার জন্যে শুধু দরকার হবে লেখালেখি করার অভিজ্ঞতা থাকা।

ব্লগিং করে আয়

যারা লেখালেখি করতে পছন্দ করেন তাদের জন্য এটি খুবই দারুন একটি পেশা।এই পেশাটি শিক্ষার্থীদের কাছে অত্যন্ত প্রিয়। তাছাড়া যারা গৃহিণী রয়েছেন তারা বাড়িতে বসেই এই কাজটি  অনায়াসেই করতে পারেন। আবার অন্যদিকে যারা চাকুরীজীবী অথবা ব্যবসায়ী রয়েছেন তারাও এই কাজটি পছন্দমতো সময় অনুযায়ী করতে পারবেন।

লেখালেখি করে টাকা আয় করার বিভিন্ন মাধ্যম রয়েছে।তারমধ্যে ব্লগিং হল অন্যতম একটি একদম। কোন প্রকার টাকা খরচ করা ছাড়াও ফ্রিতে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ব্লগিং করার মাধ্যমে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।আপনি যে আমার এই লেখাগুলো পড়ছেন এটাও এক ধরনের ব্লগ ওয়েবসাইট থেকেই পড়ছেন।ব্লগিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন।


ইউটিউব থেকে আয় 

ইউটিউব এর সাথে আমরা সকলেই পরিচিত।ইউটিউব এর নাম শুনেনি অথবা ইউটিউব ব্যবহার করেনি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। ইউটিউবে আমরা আমাদের নিত্য নতুন  প্রয়োজনে অথবা সময় কাটানোর জন্য নানান ধরনের ভিডিও দেখে থাকি। 

কখনো কি ভেবে দেখেছেন ইউটিউবে যারা ভিডিও দেয় তাদের কি লাভ? তারা কেনই বা ভিডিও আপলোড করে? যদিও আমাদের বেশিরভাগ মানুষেরই ইউটিউব ইনকাম সম্বন্ধে কোনো ধারণা নেই। তারা তো আর কষ্ট করে শুধু আইডি ভিডিও আপলোড দেয় না। কোন না কোন লাভ তো তাদের রয়েছেই। তাহলে চলুন ধারণাটি পরিষ্কার করে দিই।

ইউটিউব থেকে আয়

আপনি হয়তো আপনার মোবাইলে অথবা কম্পিউটারে ইউটিউব ভিডিও দেখার সময় মাঝে মাঝে অ্যাডভার্টাইজমেন্ট আসতে খেয়াল করেছেন।মূলত ইউটিউবাররা এই অ্যাডভার্টাইজমেন্ট ব্যবহার করে ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করে থাকেন।

ইউটিউব থেকে আয় করার জন্য ইউটিউব এর কিছু রুলস এন্ড রেগুলেশন রয়েছে।ইউটিউব এর নিয়ম-নীতি গুলো অনুসরণ করে ভিডিও আপলোড করার মাধ্যমে সর্বশেষ এক বছরের মধ্যে 1000 সাবস্ক্রাইবার এবং 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম ভিউ করাতে হবে। 

তবে আপনি ইউটিউব থেকে আয় করতে পারবেন।এক্ষেত্রে আপনার ইউটিউব চ্যানেলের কোন একটি ভিডিও যদি ভাইরাল হয়ে যায় হলে সেখান থেকে পাবেন বাম্পার ফলন।ইউটিউব এর শুধুমাত্র একটি ভাইরাল ভিডিও থেকে যে কি পরিমান ইনকাম করা সম্ভব তা সাধারন মানুষের কল্পনার বাইরে। ইউটিউব সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 


এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়

কোন একটি ই-কমার্স কোম্পানির প্রোডাক্টের লিংক জেনারেট করে প্রোডাক্ট বিক্রি করাকে বলা হয় এফিলিয়েট মার্কেটিং।সেই লিঙ্ক থেকে ক্লিক করে আপনার মাধ্যমে যত বেশি মানুষ প্রোডাক্টটি কিনবে সেই অনুপাতে টাকা আপনার একাউন্টে জমা হবে থাকবে। ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য অনলাইনে আয় করার জন্য এফিলিয়েট মার্কেটিং হল অন্যতম একটি মাধ্যম।

যারা বিভিন্ন সময়ে প্রয়োজনের ক্ষেত্রে কিভাবে অনলাইন হতে আয় করা যায় এসকল বিষয় বস্তু গুগলে সার্চ করে থাকেন তাদের মধ্যে হয়তো অনেকেই এফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে অনেককিছুই জানেন। 

আপনি যদি সহজেই এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে আয় করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে এবং সেই ওয়েবসাইটটিকে গুগলে রেঙ্ক করাতে হবে। আপনি আপনার নির্বাচিত প্রোডাক্টের ক্যাটাগরির উপর নির্বাচন করে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে আয় করবেন।

মূলত এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য বিভিন্ন ধরনের মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট রয়েছে। তবে সকল মার্কেটপ্লেস পেমেন্টের ক্ষেত্রে বিশ্বাসযোগ্য নয় এবং ভালো পরিমাণ আয় করা সম্ভব নয়। তাই এখানে কাজ করার আগে আপনাকে অবশ্যই সঠিক মার্কেটপ্লেসটি বিবেচনা করে নিতে হবে। 

বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং নির্ভরযোগ্য এফিলিয়েট মার্কেটিং সাইটের নাম কি হচ্ছে আমাজন। এফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় আর্টিকেলটি পড়ে নিতে পারেন।


ই-কমার্স এর মাধ্যমে আয়

এখানে “ই” এর পূর্ণরূপ কি হচ্ছে ইন্টারনেট এবং কমার্সের বাংলা হচ্ছে ব্যবসা। সুতরাং বলা যায় যে ইন্টারনেটকে ব্যবহার করার মাধ্যমে নিজের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলাকে বলা হয় ই কমার্স।আর বর্তমানে ইন্টারনেটের এই ডিজিটাল যুগে ই-কমার্সও অনলাইন থেকে আয় করার অন্যতম আর একটি মাধ্যম।

স্বাভাবিকভাবে আমরা অনলাইন থেকে কেনাকাটা করার ই-কমার্স হিসেবে জেনে থাকি।যদি আপনি কখনো কোন একটি প্রোডাক্ট অনলাইনে অর্ডার দিয়ে থাকেন তাহলে হয়তো আপনি কোন একটি ওয়েবসাইটের মধ্যে থেকেই পণ্য অর্ডার দিয়েছেন। পণ্য অর্ডার দেয়ার পর আপনাকে দুই-তিন দিনের মধ্যে বাড়িতে ঠিকানা অনুযায়ী পণ্য পৌঁছে দেয়। এসকল বিষয় গুলোকে বলা হয় ই-কমার্স। 

একই রকম পদ্ধতি ব্যবহার করে আপনার কাছে যদি কোন একটি প্রোডাক্ট মোটামুটি পরিমাণে এভেলেবেল থাকে তাহলে আপনিও ই-কমার্স ব্যবসা চালু করতে পারেন। সর্বপ্রথম শুধুমাত্র আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে এটি শুরু করে দিতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই একটি বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে যে, কাস্টমারদের কাছে পণ্য পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব সম্পূর্ণ আপনার। 

আপনার ওয়েবসাইটের ক্রেতারা যে প্রোডাক্টটি অর্ডার করবে সেই প্রডাক্ট অনুযায়ী আপনাকে তাদের সার্ভিস দিতে হবে।তবে ই-কমার্স করার ক্ষেত্রে একটি বিষয় রয়েছে যে, আপনাকে অবশ্যই ক্রেতাদের বিশ্বাস অর্জন করতে হবে। 

প্রথম হয়তো আপনাকে কেউ চিনবে না। কিন্তু আপনি যখন দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠবেন এবং ভালো প্রোডাক্ট কাস্টমারদেরকে দিয়ে থাকবেন তখন সবাই আপনার কাছ থেকে প্রোডাক্ট কিনতে চাইবে।এ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত আপনি গুগল অথবা ইউটিউব থেকে জেনে নেবেন। 


ছবি বিক্রি করে আয়

ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য অনলাইনে আয় করার অন্যতম আরেকটি সহজ উপায় হচ্ছে ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করা।ছবি বিক্রি করার মাধ্যমে কোন প্রকার কষ্ট ছাড়াই ঘরে বসেই আপনি অনলাইনের মাধ্যমে আয় করতে পারবেন। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র দরকার হবে নানা ধরনের নিত্য নতুন ছবি। 

ছবি বিক্রি করার জন্য নানা ধরনের ওয়েবসাইট রয়েছে। সেই ওয়েবসাইটগুলোতে অনায়াসেই আপনি আপনার পছন্দের ছবিগুলো বিক্রি করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে সর্বপ্রথম ওয়েবসাইটগুলোতে অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে এবং ক্যাটাগরি অনুযায়ী ছবি আপলোড দিতে হবে।

 ছবি আপলোড করার পর আপনার আপলোডকৃত ছবি যদি কেউ পছন্দ করে এবং সেই ওয়েবসাইট থেকে কিনে নেয় তাহলে আপনার ইনকাম হতে থাকবে। এভাবে যত বেশি  ছবি বিক্রি হবে তত বেশি আয় করতে পারবেন। 

আপনাদের জানার সুবিধার্থে ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করার ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে নিচে আমি কয়েকটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট তুলে ধরেছি। আপনারা এই সকল সাইটগুলোতে কাজ করে দেখতে পারেন।


আপওয়ার্ক এবং ফ্রিল্যান্সার থেকে আয়

আপনি কাজ করতে চান কিন্তু কোন প্রকার টাকা খরচ করার বা ইনভেস্টমেন্ট করার সামর্থ্য আপনার নেই। এই ক্ষেত্রে আপনি আপওয়ার্ক মার্কেটপ্লেসটি ব্যবহার করার মাধ্যমে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।এই অনলাইন মার্কেটপ্লেসটি অনেক বড় একটি মার্কেটপ্লেস।

র্তমানে এরকম নানান ধরনের মার্কেটপ্লেস রয়েছে যেখানে কাজ করে অনেক মানুষ প্রতিমাসে মোটা অঙ্কের টাকা ইনকাম করছে। তবে আজকের টপিক আমি শুধু মাত্র দুইটি মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে আপনাদের সাথে তুলে ধরেছি। আর সেই দুটি মার্কেটপ্লেস বিশ্বের মধ্যে সেরা মার্কেটপ্লেস গুলোর মধ্যে অন্যতম। 

আপনি যদি ইন্টার্নেশনাল মার্কেটপ্লেসগুলোতে কাজ করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই যেকোনো একটি বিষয়ের উপরে ভালো করে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে।এক্ষেত্রে আপনাকে বিভিন্ন কাজের ওপর ফোকাস না দিয়ে শুধুমাত্র একটি কাজের উপর ফোকাস  দিতে হবে। 

এই মার্কেটপ্লেসে আপনি আপনার দক্ষতা অনুযায়ী বিভিন্ন ধরনের কাজ পাবেন।এখানে আপনি নিচের কাজগুলো করার মাধ্যমেও অনলাইনে টাকা আয় করতে পারবেন। যেমন: 

  • আর্টিকেল রাইটিং 
  • ওয়েব ডেভেলপমেন্ট
  •  ওয়েব ডিজাইন 
  • অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ 
  • এস ই ও 
  • ইমেইল মার্কেটিং

উপরের বিষয়গুলো ছাড়াও যেকোন বিষয়ের উপরে মার্কেটপ্লেসে কাজ পাওয়া যায়। তবে সকল মার্কেটপ্লেসে কাজ করার আগে আপনাকে অবশ্যই অনেক দক্ষতা অর্জন করে নিতে হবে। 

সঠিক পারদর্শী না হয়ে এসকল মার্কেটপ্লেসের ঢুকা বোকামি ছাড়া আর কিছু নয়।আমার ভালো কাজ জানার পাশাপাশি আপনাকে অবশ্যই ইংরেজি জানতে হবে। এক্ষেত্রে ইংরেজি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

অনলাইনে টাকা ইনকামের বোনাস টিপস

ইন্টারনেটে আয় করার সবচেয়ে সহজ পদ্ধতিগুলোর মধ্যে আরো কিছু উপায় রয়েছে।আর এই উপায়গুলি অবলম্বন করে আপনি আপনার অবসর সময়কে কাজে লাগিয়ে সহজেই ঘরে বসেই টাকা ইনকাম করতে পারবেন।এসকল বিষয় গুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো:

  • ডিজিটাল মার্কেটিং 
  • আর্টিকেল রাইটিং 
  • ওয়েব ডিজাইন 
  • ওয়েব ডেভেলপমেন্ট 
  • অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ 
  • ইমেইল মার্কেটিং 
  • এস ই ও 
  • ডাটা এন্ট্রি 
  • লিড জেনারেশন 
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন
উপরের বিষয় গুলো হল অনলাইনের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় সমূহের মধ্যে অন্যতম। যে বিষয়গুলো আপনাদের সাথে তুলে ধরলাম সেই বিষয়গুলো থেকে প্রায় সকল বিষয়ের উপরই কাজ করে ইন্টারনেটে আয় করতে পারবেন। 

আপনি চাইলে এগুলোর যেকোনো একটিকে প্রফেশন হিসেবে ক্যারিয়ারে নিতে পারেন।তবে আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছে যারা অনলাইনে আয় করে বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে চান।তাদের জন্য একটি কথা হল যে, ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটপ্লেসগুলোতে কাজ করার পর পেমেন্ট নেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যাংক একাউন্ট হল সবচেয়ে উত্তম মাধ্যম।

4 মন্তব্য

ব্যাকলিংক পাওয়ার উদ্দেশ্য নিয়ে ইরিলেভেন্ট লিংক শেয়ার করার চেষ্টা করবেন না । স্পামিং করা থেকে বিরত থাকুন । আপনার লিংকটি যুক্তিসঙ্গত না হলে সেটি অ্যাপ্রুভ করা হবে না ।

  1. ওয়াও, আপনার আর্টিকেলটি খুব ভালো লাগলো । অনলাইনে আয় করার সবচেয়ে সহজ উপায় গুলো আপনি শেয়ার করেছেন অনেক অনেক ধন্যবাদ।

    উত্তর দিনমুছুন
  2. লেখাটি সত্যিই অনেক শেখার আছে।এবং অনেক কিছু জানতে পারবেন।আর অনলাইনেও ইনকাম করা যায় সেটা জেনে খুব ভাল লাগলো

    উত্তর দিনমুছুন

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ব্যাকলিংক পাওয়ার উদ্দেশ্য নিয়ে ইরিলেভেন্ট লিংক শেয়ার করার চেষ্টা করবেন না । স্পামিং করা থেকে বিরত থাকুন । আপনার লিংকটি যুক্তিসঙ্গত না হলে সেটি অ্যাপ্রুভ করা হবে না ।

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো