ফ্রিল্যান্সিং বা মুক্তপেশা দিন দিন অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠছে মানুষের কাছে। মানুষ এখন ঘরে বসেই ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইন থেকে ভালো পরিমাণ  ইনকাম করছে। তাদের দেখে আপনার মনে হতেই পারে যে ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইন থেকে আয় করা যায়? 

ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন
আরো পড়ুন:

ফ্রিল্যান্সিং কি?

ফ্রিল্যান্সিংকে সহজ ভাষায় বললে এটি হচ্ছে মুক্তপেশা। অর্থাৎ  কোনো প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানির অধীনে না থেকে মুক্তভাবে কাজ করা। আর যারা এই পেশার সাথে জড়িত তাদেরকে বলা হয় মুক্তপেশাজীবী বা ফ্রিল্যান্সার। ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইন ইনকাম করতে হলে আপনাকে আগে যেকোনো একটি স্কিল ডেভেলপ করতে হবে। যেমনঃ ডিজিটাল মার্কেটিং, ওয়েব ডেভেলপিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন ইত্যাদি।  তারপর সেই স্কিলকে কাজে লাগিয়ে আপনি ইনকাম করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং বা মুক্তপেশার সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে স্বাধীনতা। চাকরির মত এখানে কোনো বস থাকে না। আর  আপনি যদি ভালো মত কাজ করতে পারেন তাহলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং করে মাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। যা কোনো সাধারণ চাকরি করে আপনি পারতেন না। এখন আপনার প্রশ্ন হতে পারে যে, ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন? যারা নতুন ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চাচ্ছে তাদের মনে এই প্রশ্নটি প্রায়ই এসে থাকে।


ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন?

ফ্রিল্যান্সিং এ ভালোভাবে কাজ করার জন্য কিছু কিছু জিনিস আপনার কাছে থাকতে হবে। এইগুলো না থাকলে ফ্রিল্যান্সিং এ সফল হওয়া একটু কঠিন।

কম্পিউটার বা ল্যাপটপ

প্রথমেই যেই জিনিসটি লাগবে সেইটি হচ্ছে একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ। মোবাইল দিয়েও ফ্রিল্যান্সিং এর কিছু কাজ করা সম্ভব তবে সকল কাজ মোবাইল দিয়ে প্রোফেশনালি করা সম্ভব নয়। তাই ভালোভাবে ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে একটি কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপ আবশ্যক।

ইন্টারনেট কানেকশন

যেহেতু আপনি ঘরে বসেই দেশ বিদেশের কাজ করবেন সেহেতু আপনার অবশ্যই ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে। আপনার যদি ওয়াইফাই থাকে তাহলেতো অনেক ভালো। তাছাড়া আপনি চাইলে সিম ইন্টারনেটও ব্যবহার করতে পারেন। 

যেকোনো কিছু শেখার ইচ্ছা

ফ্রিল্যান্সিং এ ভালো করতে হলে অবশ্যই শেখার ইচ্ছা থাকতে হবে। দেখা গেলো, অন্যরা ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইন থেকে ঘরে বসে অনেক ইনকাম করছে শুনে আপনিও ফ্রিল্যান্সিং করার সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলেন। কিন্তু আপনার মধ্যে শেখার কোনো ইচ্ছা নেই তাহলে আপনি কখনোই সফল হতে পারবেন না।

আর আপনি সেই বিষয়েই স্কিল ডেভেলপ করবেন যেই বিষয়ে আপনি শিখতে আগ্রহী। কেউ একজন বলল যে, “ওয়েব ডেভেলপিং শেখো, ওয়েব ডেভেলপিং এ অনেক টাকা ইনকাম হয়।” কিন্তু দেখা গেলো আপনি এই বিষয়ে মন থেকে শিখতে আগ্রহী না। তারপরও বেশি টাকা পাওয়া যায় বলে অথবা মার্কেটে সেইটার ডিমান্ড বেশি বলে আপনি ওয়েব ডেভেলপিং শিখা শুরু করে দিলেন। তাহলে আপনি বেশি দূর আগাতে পারবেন না এবং আপনার মূল্যবান সময়গুলো নষ্ট হবে। তাই আপনার যেই বিষয়ে আগ্রহ আছে আপনি সেইটাই শিখুন। অন্যের কথাই কান দিবেন না।

ভালো ইংরেজি জানা

মুক্তপেশায় ইংরেজি জানাটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এই পেশায় আপনাকে বিদেশিদের সাথে কাজ করতে হবে ও তাদের সাথে ইংরেজিতে কথা বলতে হবে। তবে খুব ভালো ইংরেজি জানতে হবে - এমন কোনো কথা নাই। আপনি মোটামুটি কমিউনিকেশন করতে পারলেই হবে।

আপনি যদি তাদের সাথে ভালোমত ডিল করতে পারেন, তাদেরকে বুঝাতে পারেন যে আপনি ভালো কাজ পারেন। তাহলে তারা আপনাকেই কাজ দিবে।

ফ্রিল্যান্সিং শেখার সময়ও ইংরেজি জানাটা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এমন অনেক বিষয় আছে যেইগুলার বাংলাতে ভালো তেমন কোনো টিউটরিয়াল নাই। তখন আপনাকে ইংরেজি ভিডিও দেখে সেই বিষয় সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিতে হবে।

ধৈর্য

ফ্রিল্যান্সিং এ সফলতার চূড়ায় পৌছাতে হলে আপনার অবশ্যই ধৈর্য থাকতে হবে। সহজে ধৈর্য হারায় ফেললে চলবে না। আপনাকে ধৈর্য ধরে কাজ করে যেতে হবে তাহলেই আপনি সফল ফ্রিল্যান্সার হতে পারবেন। 

অনেকেই কাজ শিখার পরে কোনো কাজ পায় না তখন কেউ কেউ ধৈর্য হারায় ফেলে আবার কেউ কেউ ধৈর্য ধরে কাজ করতে থাকে। যারা ধৈর্য ধরে কাজ করে যায় তারাই সফল হতে পারে। ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ শিখতে গেলেও আপনার বিরক্ত লাগতে পারে বা কঠিন মনে হতে পারে। তখন আপনাকে ধৈর্য ধরে শিখতে হবে।

শেষ কথা

তাহলে ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন এই বিষয় সম্পর্কে ভালোমত জেনে গেছেন। আশা করি এই আর্টিকেলটি আপনার উপকারে এসেছে। তাছাড়া এই ব্যাপারে আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে আপনি আমাকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

আর্টিকেল লিখেছেন: Shahriar Tajid Arik (গেস্ট হিসেবে) 

Post a Comment

ব্যাকলিংক পাওয়ার উদ্দেশ্য নিয়ে ইরিলেভেন্ট লিংক শেয়ার করার চেষ্টা করবেন না । স্পামিং করা থেকে বিরত থাকুন । আপনার লিংকটি যুক্তিসঙ্গত না হলে সেটি অ্যাপ্রুভ করা হবে না ।

নবীনতর পূর্বতন