স্মার্টফোন আমাদের দৈনন্দিন জীবনে একটি বড় অংশ হয়ে উঠেছে। শপিং করা থেকে শুরু করে সিনেমার টিকেট এমনকি আপনি আপনার গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য যেকোনো টিকেট কাটতে পারেন স্মার্টফোন ব্যবহারের মাধ্যমে। আবার এই স্মার্টফোনেই থাকে আপনার ব্যাংক একাউন্টের লেনদেন সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সমূহ।

আর অ্যান্ড্রয়েড ফোন আমাদের দৈনন্দিন জীবনে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠার কারণেই আমরা সবাই এটিকে সংরক্ষণ করে রাখতে চেষ্টা করি। আমাদের সবার জানা উচিত অ্যান্ড্রয়েড ফোন সুরক্ষিত রাখার উপায়।

অ্যান্ড্রয়েড ফোন সুরক্ষিত রাখার উপায়

আমরা স্মার্ট ফোন চালাতে বিভিন্ন রকম অ্যাপস ডাউনলোড করে ইন্সটল করে থাকি।আর এই অ্যাপস গুলো ডাউনলোড করার জন্য পারমিশন চাইলে আমাদের পারমিশন দিতে হয়।আর যদি আমরা পারমিশন না দেই তাহলে সেই অ্যাপস ডাউনলোড করা যাবে না।হ্যাকাররা খুব সহজেই সুযোগ পেয়ে যায় আমাদের ফোনে থাকার ডিভাইসগুলো হ্যাক করার জন্য। এজন্য জেনে নিন অ্যান্ড্রয়েড ফোন সুরক্ষিত রাখার উপায়।

অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস গুলো কে সুরক্ষিত রাখার জন্য প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে গুগল।ডাটা প্রটেকশন পলিসি ও নতুন প্রাইভেসির মাধ্যমে অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস গুলোকে গত কয়েক বছর ধরে সুরক্ষিত করতে চেষ্টা করে যাচ্ছে।তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ব্যবহারকারীর কিছু ভুলের কারণে অ্যান্ড্রয়েড ফোন হ্যাক হয়ে থাকে।

এজন্য এন্ড্রয়েড ফোনের ঝুঁকি কিংবা বিপদ এড়াতে আমাদের বেশ কয়েকটি অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। আমাদের প্রত্যেকের স্মার্টফোনে নানা রকম তথ্য সংক্রান্ত বিষয় থেকে থাকে।তাই সুরক্ষা নিশ্চিত এর জন্য আজকের টপিকে সম্পূর্ণভাবে বিস্তারিত আলোচনা করব অ্যান্ড্রয়েড ফোন সুরক্ষিত রাখার উপায়।

অ্যাপস ডাউনলোডের ক্ষেত্রে সর্তকতা

আপনার স্মার্টফোন সুরক্ষিত রাখার জন্য যে কোন ধরনের অ্যাপস ডাউনলোড করুন গুগল প্লে স্টোর থেকে। অ্যাপস ডাউনলোড করার সময় অন্য কোন সোর্স থেকে ডাউনলোড করবেন না।

পরিচিত অনেক অ্যাপসগুলি বিভিন্ন সোর্স এর মাধ্যমে ডাউনলোড করা যায়। সেখান থেকে ডাউনলোড না করে আপনি বরং গুগল প্লে স্টোর থেকে সে অ্যাপসগুলো ডাউনলোড করুন।

অপ্রয়োজনীয় অ্যাপস না রাখা

আপনি আপনার স্মার্টফোনের অপ্রয়োজনীয়' অ্যাপস কিংবা আপনি যে অ্যাপ্লিকেশনগুলো ব্যবহার করেন না ঐরকম অ্যাপস ডিলিট করে দিন। যে অ্যাপস আপনার কোনো প্রয়োজন নেই দেরি না করে সেই অ্যাপস আপনি আপনার ফোন থেকে রিমুভ করে দিন।

আবার অনেক সময় দেখা যায় আপনার এন্ড্রয়েড ফোনে এমন একটি অ্যাপস রয়েছে যেটি আপনি কখনোই ইন্সটল করেননি। এই ধরনের অ্যাপস গুলোর মাধ্যমে নানা রকম তথ্য চুরি হতে পারে।তাই নিয়মিত আপনি আপনার ফোনের অ্যাপস এর তালিকা চেক করুন।

পারমিশন ম্যানেজারের নজর রাখা

আপনাকে আপনার স্মার্টফোনের একটি ফিচারের উপর নজর রাখতে হবে। আর সেটি হচ্ছে পারমিশন ম্যানেজার। বিভিন্ন রকমের অ্যাপসের কার্যক্রমের জন্য পারমিশন এর প্রয়োজন হয়।

মাইক্রোফোন, ফাইলস, ফেইসবুক এবং বিকাশের মধ্যে অ্যাপ্লিকেশন ইত্যাদির ক্ষেত্রে প্রবেশাধিকার চাওয়া হয়। কিন্তু যদি কোন অ্যাপস অযৌক্তিকভাবে প্রবেশাধিকার চায় তাহলে সেটিকে আন-ইন্সটল করে দিন। কেননা এতে করে আপনার মোবাইল ফোনের তথ্য চুরি হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়।

সেটিংস এর মাধ্যমে সতর্ক থাকা

আপনি আপনার এন্ড্রয়েড ফোনের সেটিংস থেকে ইনস্টল আন-নন অপশনটি এনেবেল থাকে তাহলে সেটি ডিজেবল করে দিন। তাহলে আপনার অনুমতি ছাড়া কোন অ্যাপস আপনার এন্ড্রয়েড ফোনে ইন্সটল হবে না।

আর তা না হলে যেকোন অ্যাপস আপনার স্মার্টফোনে ইনস্টল হয়ে যেতে পারে। যার ফলে হ্যাকারদের ফাঁদে পড়ে আপনার গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাবলী চুরি হতে পারে।

ম্যালওয়ার বা ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকা

যে সকল অ্যাপসগুলি আপনি নিয়মিত ব্যবহার করেন না সেগুলো কে আপনি ডিলিট করে দিন। আবার যখন আপনার প্রয়োজন হবে তখন ইন্সটল করে নিন।কারণ অনিয়মিত ব্যবহার করা অ্যাপসগুলি নিয়মিত আপডেট না করায় এগুলো সুরক্ষিত থাকে না। আবার এসব অ্যাপস এর কারনে আপনার স্মার্টফোনে ম্যালওয়ার প্রবেশ করতে পারে।

তাছাড়া যেকোনো ধরনের লিঙ্ক-এ ক্লিক করা থেকে বিরত থাকুন। ক্লিক করার পূর্বে লিংকটি সিকিউর বা নিরাপদ কিনা সেটা যাচাই করে নিন। তা না হলে বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস প্রবেশসহ আপনার মোবাইলের প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট হ্যাকারদের হাতে চলে যেতে পারে।

ওয়ারলেস সেবাগুলো ব্যবহারের ক্ষেত্রে সর্তকতা

আপনার প্রয়োজন ছাড়া কখনো ব্লুটুথ কিংবা ওয়াইফাই সংযোগ গুলো চালু রাখবেন না। বিশেষ করে পাবলিক ওয়াই-ফাইগুলো ব্যবহার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে। কোনো জায়গায় ওয়াই-ফাই এর সংযোগ পেয়ে ব্যবহার করতে যাবেন না।

পাবলিক ওয়াই-ফাই ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার ডিভাইসটি হ্যাকারদের নিয়ন্ত্রণে চলে যেতে পারে। তাই মোবাইলের ওয়ারলেস কানেকশনগুলো ব্যবহারের ক্ষেত্রে সর্তকতা অবলম্বন করুন। ব্যবহারের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সিকিউরিটি নিশ্চিত করে তারপর ব্যবহার করুন।

পরিশেষে,

আজকের টপিকে আপনাদের জন্য অ্যান্ড্রয়েড ফোন সুরক্ষিত রাখার উপায় সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কিছু পয়েন্ট তুলে ধরার চেষ্টা করেছি আশাকরি আর্টিকেলটি আপনাদের সবার ভালো লেগেছে।

টপিকটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মতামত বা প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে নিচের কমেন্ট বক্সে আমাদের জানাতে পারেন। আমরা আপনার প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দেওয়ার জন্য যথাযথ চেষ্টা করব- ধন্যবাদ।

Post a Comment

ব্যাকলিংক পাওয়ার উদ্দেশ্য নিয়ে ইরিলেভেন্ট লিংক শেয়ার করার চেষ্টা করবেন না । স্পামিং করা থেকে বিরত থাকুন । আপনার লিংকটি যুক্তিসঙ্গত না হলে সেটি অ্যাপ্রুভ করা হবে না ।

নবীনতর পূর্বতন